শিরোনাম
 সুন্দরবনে র‍্যাবের সঙ্গে বনদস্যুদের গোলাগুলি  একের পর এক সিইও পদত্যাগ করায় ট্রাম্পের ব্যবসায়ী পরিষদ বিলুপ্ত
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৭, ০১:০১:৪৫
অর্থ মন্ত্রণালয়ের হুঁশিয়ারি

ভারতে গোরক্ষায় কৃষকের ক্ষতি

সমকাল ডেস্ক
ভারতে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর গরু রক্ষার নামে যে তৎপরতা চলছে, তার বিপদ নিয়ে এবার সতর্কবার্তা দিয়েছে দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়। গতকাল শনিবার মন্ত্রণালয়টির আর্থিক সমীক্ষা প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে আনন্দবাজার এক রিপোর্টে জানায়, ওই আর্থিক সমীক্ষায় সুকৌশলে বলা হয়েছে, গবাদি পশু জবাইয়ে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা টানা হলে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কৃষকরাই।

আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বিভিন্ন রাজ্যে গরুর মাংস নিয়ে বাড়াবাড়ি শুরু হয়। একদিকে গরুর মাংস রাখার অভিযোগে একের পর এক মানুষ পিটিয়ে খুন। অন্যদিকে চলে গোমাংসে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা আরোপের চেষ্টা। হাটবাজারে কোনো গবাদি পশুই জবাইয়ের উদ্দেশ্যে কেনাবেচা করা যাবে না বলে নিয়ম জারি করে কেন্দ্রীয় সরকার। যদিও সুপ্রিম কোর্ট তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তবে এর আগেই প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল কৃষক, খামারি, মাংস রফতানিকারক ও চামড়া শিল্পমহল থেকে। এবার সরকারের ভেতর থেকেই উঠল আপত্তি।

গতকাল পার্লামেন্টে ওই হুঁশিয়ারি জানানো আর্থিক সমীক্ষা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যনের তৈরি করা ওই প্রতিবেদনে সরাসরি গবাদি পশু জবাইয়ে নিষেধাজ্ঞা বা গোরক্ষক বাহিনীর উল্লেখ করা হয়নি। কিন্তু বলা হয়েছে, কর্মক্ষমতা হারানোর পরে গবাদি পশুর দামের ওপরেও পশুপালকদের রুটিরুজি নির্ভর করে। এমনিতেই কৃষি থেকে আয় পড়তির দিকে। কোনো 'সামাজিক নীতি'র জেরে পশুর মাংস বেচে আয় বন্ধ হলে এবং বুড়িয়ে যাওয়া পশুকে বসিয়ে খাওয়াতে হলে চাষিদের আয় আরও কমবে। এসব 'সামাজিক নীতি'র ফলে সমাজে ক্ষতিই হবে।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved