শিরোনাম
 শোক মিছিলে হামলার পরিকল্পনা ছিল: আইজিপি  বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা  বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রে রাঘব-বোয়ালরা জড়িত ছিল: প্রধান বিচারপতি  যতদিন খালেদা জিয়া ভুয়া জন্মদিন পালন করবেন, ততদিন সংলাপ নয়: কাদের
প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০১৭, ১২:২৬:০৩ | আপডেট : ১২ আগস্ট ২০১৭, ১৩:০২:২৭

'গো-রক্ষা'য় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ভারতের কৃষক: সমীক্ষা

অনলাইন ডেস্ক
ভারতের সরকারি সমীক্ষা বলছে, সেখানে চলমান গরু রক্ষার আন্দোলনে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন দেশটির কৃষকরা। দীর্ঘদিন ধরে এমন আশঙ্কার কথা কৃষক সংগঠনগুলি বললেও এবার একই বার্তা দিল দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়। অন্যদিকে, একই সুর দেশটির অর্থনীতিবিদদের মুখেও।

সম্প্রতি ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত আর্থিক সমীক্ষায় কৌশলে বলা হয়েছে, 'গবাদি পশু জবাইয়ে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা টানা হলে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কৃষকরাই।'

সেখানে আরও বলা হয়, কর্মক্ষমতা হারানোর পরে গবাদি পশুর দামের উপরেও পশুপালকদের রুটিরুজি নির্ভর করে। এছাড়া, কোনও ‘সামাজিক নীতি’-র জেরে পশুর মাংস বেচে আয় বন্ধ হলে এবং বুড়িয়ে যাওয়া গবাদি পশুকে বসিয়ে খাওয়াতে হলে, চাষি-পশুপালকদের আয় আরও কমবে। আর, এই সব ‘সামাজিক নীতির’ ফলে সমাজ নিজেই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

আর্থিক সমীক্ষা তৈরি করেন অর্থ মন্ত্রণালযয়ের প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যন। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি তা সংসদে উপস্থাপন করেন।

‘সামাজিক নীতি’ গবাদি পশু জবাইয়ে নিষেধাজ্ঞা কি না; এমন প্রশ্নে অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যন বলেন, ‘এই সব প্রশ্ন করে আমাকে বিপদে ফেলবেন না।’ তার এমন উত্তর মূলত দেশটিতে 'উগ্র-হিন্দুত্ব' নিয়ে মোদি সরকারের মনভাবেই উঠে এসেছে বলে মনে করছেন সমালোচরা।

মোদী ক্ষমতায় আসার পর থেকেই গোমাংস নিয়ে 'বাড়াবাড়ি' শুরু। এরপর থেকে গোমাংস রাখার অভিযোগে একের পর এক পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। পাশাপাশি, গোমাংসে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা টানার চেষ্টাও চলছে।

অভিযোগ ওঠে, সরকার মানুষের খাদ্যাভাস নিয়ন্ত্রণ করতে চায়। কিন্তু তাতে কান না দিয়ে হাটেবাজারে গবাদি পশুই জবাইয়ের উদ্দেশ্যে কেনাবেচা করা যাবে না বলে নিয়ম জারি করে ভারতে কেন্দ্রীয় সরকার। তবে, সুপ্রিম কোর্ট এর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

আনন্দবাজার পত্রিকার বিশ্লেষণে বলা হয়, এসব নিয়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠে কৃষক, পশুপালক, মাংস রফতানি ও চামড়া শিল্প-সহ বিভিন্ন মহল থেকে। আর এবার সরকারের ভিতর থেকেই আপত্তি উঠল।

সিপিএমের কৃষক সভার নেতা হান্নান মোল্লা বলেন, ‘কৃষকদের আয়ের ৭০ ভাগ আসে জমি থেকে। বাকিটা পশুপালন থেকে। চাষের ক্ষতি সামলাতে না পেরে কৃষকরা আত্মহত্যা করছেন। দুধ দেওয়া বা মাঠে হাল টানাতে কাজে দেয় না এমন গরু-মোষ পুষতে হলে তার খরচ কোথা থেকে আসবে।’

জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক বিকাশ রাওয়ালের বক্তব্য, ‘বছরে ৩.৭ কোটি পুরুষ গরু-মোষ জন্ম হয়। জবাই বন্ধ হলে এদের খাবারের পিছনে বছরে ৫.৪ লক্ষ কোটি টাকা খরচ।’ রাওয়ালের প্রশ্ন, এই আর্থিক দায়ভার কি সরকার বহন করব?

মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved