শিরোনাম
 ওসমানীতে সাড়ে ৩ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার  বরিশাল আদালতের ৬ পুলিশ প্রত্যাহার  হিমছড়িতে পাহাড়ধসে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৭, ০১:০৪:২৪

প্রজন্মের সেরা ক্রীড়াবিদ!

স্পোর্টস ডেস্ক
রাজা আসে, রাজা যায়। কিন্তু তিনি অবিচল থেকে গেছেন। ১৪ বছর। টেনিসের মতো শারীরিক সক্ষমতার খেলায় এটা অবিশ্বাস্য। প্রায় দেড় দশক ধরে রাজত্ব করছেন। টেনিসের ইতিহাসে রজার ফেদেরারের চেয়ে বড় নায়ক দ্বিতীয় কেউ নেই।

টেনিসে ওপেন যুগ শুরু হয়েছিল ১৯৬৮ সালে। ওপেন যুগের শুরুতে রাজত্ব করেন মার্গারেট কোর্ট এবং রয় এমারসন। ৬০-এর দশকে ১৬টা গ্র্যান্ডস্লাম জিতেছেন কোর্ট। এরপর ৭০-এর রাজত্ব করে বিয়োন বর্গ। আশির দশক ছিল মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা আর ইভান লেন্ডলের। টেনিসে নব্বইয়ের দশক শাসন করেছেন পিট সাম্প্রাস আর স্টেফি গ্রাফ। এরপরই রজার ফেদেরারের যুগ শুরু। এখনও যুগান্তরের কোনো লক্ষণ নেই।

১৯৮৫। রজার ফেদেরার তখন চার বছরের শিশু। ছোট্ট ফেদেরারের মন জিতে নিলেন এক টেনিস তারকা। বরিস বেকার। ১৯৮৫ সালে যিনি উইম্বলডন জিতেছিলেন অবাছাই হিসেবে। ফাইনাল ম্যাচ টিভিতে দেখেছিলেন ফেদেরার। যা নিয়ে পরে তিনি বলেন, 'সব খেলাধুলার মধ্যে টেনিসকেই সেরা মনে হলো। তীব্র উত্তেজনাপূর্ণ। হার-জিত নিজের হাতে।' বেকারই প্রথম টেনিস খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন এঁকে দেন সুইস তারকার মনে। না হলে কী হতেন তিনি? হয়তো ফুটবলার। কারণ ১২ বছর পর্যন্ত দারুণ ফুটবল খেলতেন ফেদেরার। চোখে পড়েন ওল্ড বয়েজ টেনিস ক্লাবের কোচ এডলফ ককোভস্কির। ফেদেরারকে দেখার প্রথম অভিজ্ঞতা সম্পর্কে যিনি পরে বলেছেন, 'সে ছিল সহজাত প্রতিভাবান। সে আসলে র‌্যাকেট হাতে নিয়েই জন্মেছিল। ক্লাব ও আমি বুঝে গিয়েছিলাম, সে অবিশ্বাস্য প্রতিভাবান। ক্লাবের বিশেষ অর্থায়নে আমরা তাকে প্রাইভেট প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু করলাম। রজার খুব দ্রুত শিখে ফেলত। যখন তাকে নতুন কিছু শেখাতাম তখন সে তা দু-তিনবারের চেষ্টাতেই রপ্ত করত। অন্যদের তা শিখতে লাগত সপ্তাহ খানেক।' কেবল শেখা নয়, কাকোভস্কির তারকা ছাত্র সব সময় বিশ্বসেরা হতে চাইতেন। ব্যাপারটা নিয়ে হাসাহাসিও হতো। কাকোভস্কি বলেছেন, 'লোকে তাকে নিয়ে হাসিঠাট্টা করত। আমিও করতাম। তখন ভাবতাম, সে হয়তো সুইজারল্যান্ড বা ইউরোপের সেরা হতে পারে; কিন্তু কিছুতেই বিশ্বসেরা হতে পারে না।' টেনিসে বিশ্বসেরা হয়েছেন রজার ফেদেরার। শুধু বিশ্বসেরাই নন, ১৯টি গ্র্যান্ডস্লামজয়ী রজার এখন সর্বকালের সেরাও। তিনি সব ধরনের খেলাধুলা মিলিয়েই সর্বকালের সেরা কি-না তাই নিয়ে আলোচনা চলছে। টেনিসে তিনি সব কিংবদন্তিকে পেছনে ফেলেছেন। মার্কিন কিংবদন্তি পিট সাম্প্রাসের ১৪টি গ্র্যান্ডস্লামের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিলেন আগেই। বিয়ন বর্গ, জন ম্যাকেনরো, আন্দ্রে আগাসি, রড লেভার ও আর্থার অ্যাশরা তার অনেক পেছনে। আর সমসাময়িক রাফায়েল নাদাল, নোভাক জকোভিচ ও অ্যান্ডি মারেরাও এঁটে উঠতে পারেননি। স্প্যানিশ নাদাল ফরাসি ওপেনে শ্রেষ্ঠত্ব দেখালেও সব মিলিয়ে ফেদেরারই সেরা।

টেনিস ভুবন ছাপিয়ে ফেদেরার কি এখন সর্বকালের সেরা ক্রীড়া আইকন হওয়ার পথে? বিতর্ক কিন্তু জোরেশোরেই চলছে। কেউ বলছেন ফুটবলে পেলে ও ম্যারাডোনা, বক্সিংয়ে মোহাম্মদ আলী, বাস্কেটবলে মাইকেল জর্ডান, গলফে টাইগার উড, ফরমুলা ওয়ানে মাইকেল শুমাখার, অ্যাথলেটিকসে উসাইন বোল্ট, ক্রিকেটে ডন ব্র্যাডম্যান যা, টেনিসে ফেদেরার তাই।

মাইকেল জর্ডানের কথাই ধরা যাক। দলীয় খেলায় এতবড় তারকা খুব কমই আছে। ছয়বার শিকাগো বুলসকে এনবিএ চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন জর্ডান। পাঁচবার ম্যাচসেরা হয়েছিলেন। ২০০৩ সালে অবসর নেওয়ার পর এনবিএ থেকে বিজ্ঞাপন তুলে নেওয়া শুরু করেছিল বিজ্ঞাপনদাতারা। এরপর অবসর ভেঙে তিনি ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছিলেন। ল্যারি বার্ড তাকে বর্ণনা করেছিলেন_ 'বাস্কেটবলের ঈশ্বর' বলে।

ডন ব্র্যাডম্যান যেমন, ক্রিকেটীয় দক্ষতায় তার ধারেকাছে কেউ নেই। এইচ গ্গ্নাসগো কি আর এমনি এমনি লিখেছিলেন_ 'ব্যাটিংয়ে কবিতা আর সংহারের সমন্বয়।' গড় প্রায় একশ'। প্রতিভা-দক্ষতা প্রয়োগ ক্ষমতা এবং খেলার ওপর প্রভাব বিবেচনায় সর্বকালের সেরা স্পোর্টস আইকন হিসেবে ব্র্যাডম্যানের নাম অবশ্যই আসবে। যেমন আসবে ফুটবলের জিনেদিন জিদান, লিওনেস মেসি কিংবা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর নাম। পেলে, ম্যারাডোনা ও জিদান নিজেদের দেশকে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন করেছেন। ফুটবল দক্ষতায় ও ব্যক্তিগত অর্জনেও তারা অনন্য। কিন্তু দলীয় খেলার তারকা বলেই হয়ত তারা ফেদেরারের সঙ্গে তুলনায় আসবেন না। ফেদেরারের সঙ্গে তুলনায় আসতে পারেন জ্যামাইকান অ্যাথলেট উসাইন বোল্ট, সাঁতারের মাইকেল ফেলপস বা ফরমুলা ওয়ান তারকা আয়ারটন সেনা। জলের দৈত্য ফেলপসের ২৮টি অলিম্পিক মেডেল আছে। তাকে সর্বকালের সেরা অলিম্পিয়ান বলা হয়। আটটি অলিম্পিক মেডেল জয়ী বোল্টও সর্বকালের অন্যতম সেরা অ্যাথলেট। কিন্তু অর্জনের সঙ্গে তারা ব্যক্তিগত জীবন বিতর্কিতও। এখানেই ব্যতিক্রম ফেদেরার। এত অর্জন, কোর্টে অসামান্য দক্ষতা, অথচ কোনো বিতর্ক নেই। একক অর্জনে এগিয়ে থাকা গলফার টাইগার উডের যেমন আছে। তিনবার ফরমুলা ওয়ানের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আয়ারটন সেনার যেমন আছে।

ভিন্ন ভিন্ন খেলায় দক্ষতা বিচারের কোনো মানদণ্ড নেই। তাই কে সেরা তা নিয়ে সিদ্ধান্তে আসাও সম্ভব নয়। তবে একটা ব্যাপারে ফেদেরার কিন্তু 'গ্রেট ক্রীড়া আইকন'দের মধ্যে সেরা। তা হলো গ্রেট ফেদেরার বিতর্কহীন। অকলঙ্ক শুভ্রতায় তার সিগনেচার টিউন।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved