শিরোনাম
 রাজধানী ও কুষ্টিয়ায় 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ৪  'রাজধানীতে বন্দুকযুদ্ধে নিহতরা এএসপি মিজান হত্যায় জড়িত'
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৭, ০০:৪৭:০১

বিজয় আনবে বেশি 'মূল্যের' ভোট

সমকাল ডেস্ক
ভারতের রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন হয়ে গেল গতকাল সোমবার। ভোটের ফল জানতে আগামী বৃহস্পতিবারের অপেক্ষায় থাকতে হলেও প্রায় নিশ্চিত, কংগ্রেসসহ ১৭ দলীয় বিরোধী জোটের প্রার্থী মীরা কুমারকে হারিয়ে রাইসিনা হিলের পরবর্তী বাসিন্দা হতে যাচ্ছেন বিজেপির প্রার্থী রামনাথ কোবিন্দ। গতকালের নির্বাচনে ভোটার ছিলেন দেশটির পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভা ও নিম্নকক্ষ লোকসভার সাংসদ এবং রাজ্যের বিধানসভাগুলোর বিধায়করা। কিন্তু কোন প্রার্থী কতজনের ভোট পেলেন, হারজিতের ফয়সালা পুরোপুরি তার ওপর নির্ভর করছে না। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে একজন প্রার্থী কত মূল্যের ভোট পেলেন, হারজিত নির্ধারিত হয় তার ভিত্তিতেই। এমনই জটিল হিসাব-নিকাশ ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোটের। যেমন- পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কোনো বিধায়ক এক ভোট দিলেন, তাতে ভোট হিসাব হবে ১৫১টি। অন্যদিকে কোনো সাংসদ ভোট দিলেন, তাতে ভোট হিসাব হবে ৭০৮টি।

মোট ভোটার কতজন :ভারতের ২৯টি রাজ্যের এবং কেন্দ্রশাসিত দিলি্ল ও পুদুচেরি বিধানসভার মোট নির্বাচিত সদস্যসংখ্যা চার হাজার ১২০। লোকসভার নির্বাচিত সদস্যসংখ্যা ৫৪৩। রাজ্যসভার নির্বাচিত সদস্যসংখ্যা ২৩৩। অর্থাৎ, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেন মোট চার হাজার ৮৯৬ জন সাংসদ ও বিধায়ক।

বিধায়কদের ভোটের মূল্য :কোনো রাজ্যের জনসংখ্যাকে প্রথমে সেই রাজ্যের বিধায়ক-সংখ্যা দিয়ে ভাগ করা হয়। তার পর সেই ভাগফলকে ১০০০ দিয়ে ভাগ করা হয়। এতে যে সংখ্যা এলো, তা যদি পূর্ণ সংখ্যা হয়, তা হলে সেটাই সেই রাজ্যের প্রত্যেক বিধায়কের ভোটমূল্য। পূর্ণ সংখ্যা না হলে নিকটবর্তী পূর্ণ সংখ্যাটিই সেই রাজ্যের প্রত্যেক বিধায়কের ভোটমূল্য। ১৯৭১ সালে পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যা ছিল চার কোটি ৪৩ লাখ ১২ হাজার ১১। বিধায়ক-সংখ্যা ২৯৪। তাই নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যেক বিধায়কের ভোটমূল্য ১৫১। আবার অল্প্রব্দপ্রদেশের বিধায়কদের ভোটমূল্য ২৪৮।

সাংসদদের ভোটমূল্য :বিধায়কদের সম্মিলিত ভোটমূল্য পাঁচ লাখ ৪৯ হাজার ৪৭৪। সাংসদদের সম্মিলিত ভোটমূল্যও তাই ধরে নিয়ে ওই সংখ্যাকে সাংসদ-সংখ্যা (৭৭৬) দিয়ে ভাগ করা হয়। ভাগফলকে নিকটবর্তী পূর্ণ সংখ্যায় নিয়ে গেলে প্রত্যেক সাংসদের ভোটমূল্য দাঁড়ায় ৭০৮।

ভোটাভুটি ও গণনা :যে প্রার্থী যত বেশি সংখ্যক সাংসদের ভোট পাবেন, তিনি ততই এগিয়ে থাকবেন। কিন্তু বিধায়কদের ভোটের ক্ষেত্রে তা হবে না। সাংসদ ও বিধায়কদের ভোট মিলিয়ে মোট ভোটমূল্য ১০ লাখ ৯৮ হাজার ৭৮২। জয়ের জন্য প্রয়োজন ৫০ শতাংশের বেশি, অর্থাৎ পাঁচ লাখ ৪৯ হাজার ৪৪২টি ভোট।

প্রথম পছন্দের ভোট গুনেই যদি দেখা যায়, কোনো প্রার্থী সেই অঙ্কে পেঁৗছে গেছেন, তা হলে তাকে জয়ী ঘোষণা করা হয়। কিন্তু প্রথম পছন্দের ভোট গোনার পর যদি দেখা যায়, কোনো প্রার্থীই পাঁচ লাখ ৪৯ হাজার ৪৪২-এ পেঁৗছাতে পারেননি, তা হলে শেষ স্থানে থাকা প্রার্থীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বাদ দেওয়া হয়। তিনি যে প্রথম পছন্দের ভোটগুলো পেয়েছিলেন, সেসব ব্যালটে দ্বিতীয় পছন্দের ভোট কার দিকে গেছে, তা গোনা হয়। সেই ভোট যোগ করে যে প্রার্থী আগে পাঁচ লাখ ৪৯ হাজার ৪৪২-এ পেঁৗছান, তিনিই জয়ী। কিন্তু দ্বিতীয় পছন্দের ভোট গুনেও যদি ফয়সালা না হয়, তা হলে তৃতীয় পছন্দের ভোট গোনা হয়।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved