শিরোনাম
 ওসমানীতে সাড়ে ৩ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার  বরিশাল আদালতের ৬ পুলিশ প্রত্যাহার  হিমছড়িতে পাহাড়ধসে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু
প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৭, ১৬:১৭:০২ | আপডেট : ১২ জুলাই ২০১৭, ১৬:৩৪:৩৪

জামালপুরে বন্যা: স্কুলছাত্রের মৃত্যু, ১৩৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা

জামালপুর প্রতিনিধি
জামালপুরে সার্বিক  বন্যা পরিস্থিতি চরম অবনতি হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীর পানি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে জেলার ইসলামপুর , দেওয়ানগঞ্জ, মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ, সরিষাবাড়ি ও জামালপুর সদর উপজেলার লাখো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

দ্রুত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার অভ্যন্তরীণ সড়ক পানিতে ডুবে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল হয়ে গেছে। মঙ্গলবার ইসলামপুরের বেলগাছা উচ্চবিদ্যালয়ের আশ্রয় কেন্দ্র থেকে পড়ে বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে রিপন (১০) নামে এক স্কুল ছাত্র।

বানভাসি মানুষের অভিযোগ, এখন পর্যন্ত দুর্গত এলাকায় পৌঁছেনি কোন ত্রাণ সামগ্রী। প্রয়োজনীয় খাদ্য,বিশুদ্ধ পানি ও গৌ-খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ঘরবাড়ি ডুবে যাওয়ায় মানুষজন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও উচু রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছে। বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে দুর্গত এলাকার ১৩৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

দুর্গত এলাকার প্রায় লাখো মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করছে। বসতঘর, আসবাপত্র, ধান-চাল ও ঘরে থাকা খাদ্যসামগ্রী ভেসে যাওয়া এবং ডুবে থাকায় তারা এখন দিশেহারা হয়ে ওঠেছেন। দুর্গত এলাকায় পাটসহ বিভিন্ন ফসল ভেসে ও তলিয়ে যাওয়ায় হাজার হাজার কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া দুর্গত এলাকার মাঠঘাট পানিতে ডুবে থাকায় গৌ-খাদ্যের তীব্র খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শহিদুল ইসলাম সমকালকে জানিয়েছেন,বন্যার পানি ওঠায় ১১২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় অনিদিষ্ট সময়ের জন্য বন্ধ ঘোষণার করা হয়েছে।

জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক নিয়ন্ত্রক আবদুল মান্নান বলেন, 'গত তিন দিন বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত ছিল। হঠাৎ করে গত সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে পানি হুহু করে বাড়তে থাকে। গত ২৪ ঘন্টায় ১০ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ঘন্টায় ঘন্টায় পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এভাবে পানি বাড়তে থাকলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।'

জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর গত মঙ্গলবার বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ইসলামপুর উপজেলার দুর্গত এলকা পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ও ইউএনও এহছানুল হক মামুন বন্যাত্বদের মাঝে এক হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করেন।

জেলা প্রশাসক সমকালকে বলেন, 'গত রাত থেকে বন্যার পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সকল ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই ৯০ মেট্রিক টন চাল,নগদ এক লাখ ২০ হাজার টাকা এবং এক হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আজ আরও ৪০ মেট্রিক টন চাল ও ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দুর্গত এলাকার সংশ্লিষ্ট ইউএনওদের ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।'

আরও পড়ুন
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved