শিরোনাম
 সিদ্দিকুরকে চেন্নাই নেয়া হচ্ছে  ইতিহাস সংস্কৃতিকে তুলে ধরে উন্নত চলচ্চিত্র নির্মাণ করুন: প্রধানমন্ত্রী  সীতাকুণ্ডের ত্রিপুরা পাড়ার আরেক শিশুর মৃত্যু  সংবিধানিক অধিকারকে খাঁচায় বন্দি রেখেছে সরকার: রিজভী
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৭, ০১:৪৭:২৫

যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা আসামি ছিনতাই

ময়মনসিংহ ব্যুরো

যুবলীগ নেতার নেতৃতে পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনতাই এবং পুলিশ ফাঁড়িতে সশস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাতে ময়মনসিংহ শহরের কলেজ রোডে এ ঘটনা ঘটে।

ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান রনির নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী শহরের কলেজ রোড এলাকায় বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের কাছ থেকে এক আসামি ছিনতাইয়ের পর দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ২নং পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা চালায়। এ সময় সন্ত্রাসীরা পুলিশ ফাঁড়িতে ব্যাপক ভাংচুর চালিয়ে হজরত আলী নামে মামলার এক বাদীকে তুলে নিতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ হামলায় পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই ফারুক হোসেনসহ দুই পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে যুবলীগ কর্মী শান্ত এবং রাতে

শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে যুবলীগ কর্মী সাজ্জাদ ও তানভীরকে আটক করে। পুলিশের কাজে বাধা, আসামি ছিনতাই ও ফাঁড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুরের ঘটনায় মহানগর যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান রনি, আসাদুজ্জামান অপু, সোহাগ ও শান্তসহ চারজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৮-১০ জনকে আসামি করে দ্রুত বিচার আইনে দুটিসহ তিনটি মামলা হয়েছে। পুলিশ জানায়, শহরের জবেদ আলী রোডের ব্যবসায়ী হজরত আলীর কাছে বহু মামলার আসামি আসাদুজ্জামান অপু চাঁদা দাবি করলে তিনি চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানান। পরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলেজ রোড এলাকা দিয়ে তিনি মোটরসাইকেলে বাসায় ফেরার পথে আসাদুজ্জামান অপু ও

মহানগর যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান রনির

নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তার গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে হজরত আলীর মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। এ সময় ওই এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় বাসিন্দারা ২নং পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেয়। খবর পেয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ফারুক হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আসাদুজ্জামান অপুকে আটক করে হজরত আলীকে উদ্ধার করে নিয়ে যেতে চায়। এ সময় সন্ত্রাসীরা জোর করে পুলিশের কাছ থেকে আসামি আসাদুজ্জামান অপুকে ছিনিয়ে নেয়। পুলিশ হজরত আলীকে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। এদিকে, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে মহানগর যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান রনির নেতৃত্বে ৬-৭টি মোটরসাইকেল নিয়ে প্রায় ১৫ জনের একদল সন্ত্রাসী পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা চালিয়ে চেয়ার-টেবিল ভাংচুর করে হজরত আলীকে তুলে নিতে চায়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় ফাঁড়ির এসআই ফারুক হোসেন, এএসআই শিবলী, লুৎফর এবং কনস্টেবল রাজন, আফসারসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নুর-ই-আলম, ২নং পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ফারুক হোসেন জানান, মহানগর যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান রনির নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা পুলিশের কাজে বাধা দেয় এবং পুলিশ ফাঁড়িতে ব্যাপক ভাংচুর চালায়।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি কামরুল ইসলাম জানান, পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ফাঁড়ির এসআই ফারুক হোসেন বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আইনে দুটি এবং মারধর ও মোটরসাইকেল ভাংচুরের ঘটনায় হজরত আলী বাদী হয়ে অপর একটি মামলা করেছেন। সন্ত্রাসী আসাদুজ্জামান অপুর বিরুদ্ধে গোলাপজান রোডে একটি বাড়ি পোড়ানো, কলেজ রোডে একজনকে কুপিয়ে আহত করা ও চাঁদাবাজিসহ ৫টি মামলা রয়েছে।

এ ব্যাপারে মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক শাহীনুর রহমান বলেন, হামলা ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় মহানগর যুবলীগের কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান, মামলার বাদীকে মারধর ও মোটরসাইকেল ভাংচুর করে পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনতাইয়ের পর ফাঁড়িতে পুলিশের ওপর সশস্ত্র হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা অমার্জনীয়। এসব সন্ত্রাসীকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

সন্ত্রাসী এ ঘটনার পর কলেজ রোড, গোলাপজান রোড, জবেদ আলী রোডসহ আশপাশের এলাকায় গ্রেফতার ও হামলা আতঙ্ক বিরাজ করছে।


মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved