শিরোনাম
 নায়করাজ রাজ্জাক আর নেই  বন্যার্তদের জন্য অস্ট্রেলিয়ার সমবেদনা  রীড ফার্মা: স্বাস্থ্য সচিবকে হাইকোর্টে তলব  ৩৮ ঘণ্টা পর ঢাকার সঙ্গে উত্তর-দক্ষিণের ট্রেন চালু
প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৭, ২১:২৫:৫৫

বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ ১৯ জনের মৃত্যু

সমকাল ডেস্ক
বজ্রপাতে দেশের আট জেলায় অন্তত ১৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ফরিদপুরেই মারা গেছে মা-ছেলেসহ ১০ জন। এ ছাড়া মাগুরায় দুই কৃষক, দিনাজপুরে কিশোরীসহ দুজন এবং ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, কুষ্টিয়া, হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জে একজন করে মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

গত রোববার ও সোমবার এসব ঘটনা ঘটে। সমকালের ব্যুরো, আঞ্চলিক অফিস ও সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

সকালে ফরিদপুরের সালথা উপজেলার ভাবুকদিয়া গ্রামের গৃহবধূ হেলেনা বেগম শিশুপুত্র হেলালকে নিয়ে ঘরের পাশের উঠানে দাঁড়িয়ে ছিলেন। হঠাৎ বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মা-ছেলে মারা যান। এ ছাড়া মাঠে কাজ করার সময় মো. মিলন নামের এক কৃষক নিহত হন। একই দিন বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের বাজিতপুর মোল্যাপাড়া জামে মসজিদের ইমাম আওয়াল ফকির (৪৮) বৃষ্টি শুরু হলে গরু আনার জন্য দুর্গাপুর মাঠে গেলে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ সময় গরুটিও মারা যায়। একই গ্রামের উত্তরপাড়ার ফরহাদ মোল্যা (৩৫) গোয়ালঘরে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

বিকেলে চরভদ্রাসনের ছমির বেপারীর ডাঙ্গী এলাকায় কাজ করার সময় বজ্রপাতে শেখ আদেল (৪৫) নামের এক দিনমজুরের মৃত্যু হয়। সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের কবিরপুর খেয়াঘাট এলাকায় বজ্রপাতে মো. ওমর আলী (৪৫) নামের এক দিনমজুরের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া রোববার বিকেলে সদরপুর উপজেলার আকটেরচর ইউনিয়নের কুকারাম সাকারের ডাঙ্গী গ্রামে ক্ষেত থেকে বাদাম তুলতে গিয়ে বীথি (১৫), আরজনা শেখ (৪৫) ও তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৪০) বজ্রপাতে নিহত হন।

মাগুরা সদর উপজেলার নালিয়ারডাঙ্গী গ্রামের কৃষক কলমদী বিশ্বাস (৪৮) দুপুরের দিকে সবজিক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতের শিকার হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে মাগুরা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। একই সময় সদর উপজেলার মঘি মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাতে আহাদ শেখ (৫০) নামের এক কৃষক নিহত হন।

দিনাজপুর সদর উপজেলার ৬ নম্বর আউলিয়াপুর ইউনিয়নের পশ্চিম মোহনপুর বানিয়াপাড়া গ্রামের দিনমজুর লুৎফর রহমান (৩০) রোববার সন্ধ্যায় কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। একই ইউনিয়নের সহবতপুর গ্রামের আবদুর রশিদের মেয়ে মুর্শিদা বেগম (১৫) মাঠে গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়।

ঝালকাঠি সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের খাদৈখিরা গ্রামে দুপুরে বাড়ির সামনের মাঠে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে জাকির হোসেন আকন (৪৫) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন।

পটুয়াখালীর দুমকীতে বজ্রপাতে লেবুখালী আঙ্গারিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক আবদুুল কাদের গাজী (৫০) নিহত হয়েছেন। দুপুর দেড়টার দিকে উত্তর শ্রীরামপুর গ্রামের বাড়ির টিউবওয়েলে গোসল করার সময় আকস্মিক বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ঠাকুরপাড়া গ্রামের বাদশা নামের এক কিশোর দুপুরে মাঠে ঘাস কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। এ সময় তার ছোট ভাই রাজা গুরুতর আহত হন।

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে বজ্রপাতে আবু ইউছুফ নামের (৩৫) এক জেলের মৃত্যু হয়েছে। সকালে বৃষ্টির মধ্যে আবু ইউছুফ হাওরে মাছ ধরতে গেলে বজ্র্রপাতে গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বজ্রপাতে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। সকালে উপজেলার আলখানাপাড়ায় নলুয়া হাওরে মাটির কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

আরও পড়ুন
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved