শিরোনাম
 সাত খুন মামলায় ১৫ জনের ফাঁসি বহাল, ১১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড  প্রধান বিচারপতির সঙ্গে গওহর রিজভীর সাক্ষাৎ  বিবিএস ক্যাবলসের অস্বাভাবিক দর তদন্তে কমিটি  বন্যাদুর্গত এলাকায় কৃষি ও এসএমই ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৮ জুন ২০১৭, ০২:১২:৪৩ | আপডেট : ১৮ জুন ২০১৭, ১৩:১৩:০১
পাহাড়ধস

এমপিরা নেই দুর্গত এলাকায়

আবদুল্লাহ আল মামুন, চট্টগ্রাম

টানা বৃষ্টিতে পাহাড়ধসের পাঁচ দিন পরও দুর্গত এলাকায় যাননি সংসদ সদস্যরা। ঘরবাড়ি হারিয়ে যারা আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন, তারা তাদের দেখতেও যাননি। তবে এমপিরা ক্ষতিগ্রস্তদের নানাভাবে সহায়তা করছেন, দিচ্ছেন ত্রাণ।



পাহাড়ধসে মাটিচাপায় রাঙামাটির কাউখালীতে ২১ ও কাপ্তাইয়ে ১৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুই শতাধিক। কিন্তু ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাননি রাঙামাটির সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। তবে তিনি রাঙামাটি সদর এলাকায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে ছিলেন। পাহাড়ধসে চন্দনাইশে চারজন নিহত হয়েছেন। ঘটনার তিন দিন পর সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম সংসদীয় এলাকায় গেলেও পাহাড়ধসের ঘটনাস্থলে যাননি। রাঙ্গুনিয়ায় নিহত হয়েছেন ২৭ জন। স্থানীয় সংসদ সদস্য হাছান মাহমুদ দু'দিন পর সংসদীয় এলাকায় এলেও ঘটনাস্থলে যাননি।



রাঙামাটি সদর থেকে কাপ্তাই উপজেলার .দূরত্ব প্রায় ২৭ কিলোমিটার। পাহাড়ধসে কাপ্তাই সদর, চন্দ্রঘোনা ও ওয়াগ্গা এলাকায় নিহত হয়েছেন ১৮ জন। আহত হয়েছেন শতাধিক। বিধ্বস্ত হয়েছে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি। উপজেলার তিনটি আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় ৩১০টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। তবে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে এখনও কোনো ত্রাণ বিতরণ করা হয়নি। গতকাল শনিবার পর্যন্ত স্থানীয় সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার ক্ষতিগ্রস্তদের দেখতে যাননি বলে জানান চন্দ্রঘোনা, কাপ্তাই ও ওয়াগ্গার ইউপি চেয়ারম্যানরা।



রাঙামাটি সদর থেকে কাউখালী উপজেলার দূরত্ব ৩৩ কিলোমিটার। এ উপজেলায় পাহাড়ধসে নিহত হয়েছেন ২১ জন। সেখানেও যাননি সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। তিন দিন পর গত শুক্রবার প্রথমবারের মতো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমনী আক্তার কাউখালীতে যান। কচুখালী এলাকায় কয়েকজন ক্ষতিগ্রস্তকে এক হাজার টাকা করে তিনি অর্থ সহায়তা দেন।



সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার সমকালকে বলেন, তিন দিনে রাঙামাটি সদরে অনেক লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সার্বক্ষণিক তা তদারকি করতে হয়েছে। কেন্দ্রীয় অনেক নেতা এখানে এসেছেন। এ কারণে কাউখালী ও কাপ্তাইয়ে যেতে পারিনি। এ ছাড়া সেখানে সড়ক যোগাযোগও বন্ধ রয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে ওইসব এলাকায় যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।



বান্দরবানে পাহাড়ি ঢল ও ধসের কারণে কয়েকশ' পরিবার আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছে। তাদের দেখতে যাননি স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর বাহাদুর। তবে তিনি সদরের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ছিলেন। এ ছাড়া লামা উপজেলায়ও ক্ষতিগ্রস্তদের দেখতে যাননি তিনি। এ ছাড়া পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত দুর্গম ধোপাছড়ি এলাকায় যাননি চন্দনাইশের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম। তবে তিন দিন পর ভারি বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকটি এলাকা পরিদর্শনে যান তিনি। পাহাড়ধসের দু'দিন পর লালানগর, হোসনাবাদ, রাজানগর ও ইসলামপুর ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্তদের দেখতে যান স্থানীয় সংসদ সদস্য হাছান মাহমুদ।



রাঙ্গুনিয়ার সংসদ সদস্য হাছান মাহমুদ বলেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ সভা থাকায় ঘটনার পরপর ঘটনাস্থলে যেতে পারিনি। বৃহস্পতিবার কয়েকটি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছি। ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে আমার পক্ষ থেকে ৭০ বস্তা চাল বিতরণ করা হয়েছে। আরও ৩০ বস্তা চাল বিতরণ করা হবে। আজ রোববার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাবেন বলেও জানান তিনি।



সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, সংসদে ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ সাহায্য নিয়ে কথা বলেছি। এ কারণে এলাকায় আসতে তিন দিন দেরি হয়েছে। শুক্রবার কয়েকটি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছি। ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে আমার পক্ষ থেকে ৬০ বস্তা চাল বিতরণেরও নির্দেশ দিয়েছি।


মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved