শিরোনাম
 শোক মিছিলে হামলার পরিকল্পনা ছিল: আইজিপি  বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা  বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রে রাঘব-বোয়ালরা জড়িত ছিল: প্রধান বিচারপতি  যতদিন খালেদা জিয়া ভুয়া জন্মদিন পালন করবেন, ততদিন সংলাপ নয়: কাদের
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ২৫ মে ২০১৭

রফতানি বহুমুখীকরণে নীতি সংস্কার করতে হবে

সমকাল প্রতিবেদক
রফতানি বহুমুখীকরণের জন্য মুদ্রাবিনিময় ও বাণিজ্য নীতির সংস্কার করা প্রয়োজন। সম্পূরক শুল্ক তুলে দিলেও দেশীয় শিল্প সুরক্ষার বিষয়টি বাণিজ্য নীতিতে গুরুত্ব দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে টাকার দরপতন হলে আমদানির বিকল্প দেশি পণ্য সুরক্ষা হবে। পাশাপাশি রফতানিকারদের জন্য প্রণোদনা হিসেবে কাজ করবে।

গতকাল বুধবার ঢাকায় পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত 'ট্রেড অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রেট পলিসাইজ ফর এক্সপোর্ট ডাইভারসিফিকেশন' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন বক্তারা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। পিআরআইর চেয়ারম্যান ড. জায়েদি সাত্তারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রতিষ্ঠানের ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিআরআইর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশে ব্যবসার ক্ষেত্রে অনেক সময় মুদ্রার বিনিময় হার সমস্যা হিসেবে হাজির হয়। এ ক্ষেত্রে দুদিক থেকে সমস্যা। যেমন কয়েকদিন আগে ডলারের দাম বেড়েছে। তখন আমদানিকারকরা কমানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। ওই সময় রফতানিকারকদের কথা ভুলে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে একাধিকবার ডলারের দাম সমন্বয়ের জন্য ব্যবস্থা নিতে বলেছেন তিনি। অন্যদিকে রফতানিকারকরা ডলারের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিচ্ছেন। উভয় দিক বিবেচনা করে এ ক্ষেত্রে কিছু করা দরকার বলে মনে করেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পণ্য ও বাজার বহুমুখীকরণে এগিয়ে আসতে হবে। বর্তমানে চীন, জাপান, ভারত, চিলিসহ অনেক দেশ শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা দিয়েছে। এ সুবিধা কাজে লাগাতে হবে। পণ্য বহুমুখীকরণের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা সুযোগ গ্রহণ না করলে হবে না। তিনি আরও বলেন, চামড়াকে বর্ষপণ্য ঘোষণা করা হয়েছে। এর বাইরে তথ্যপ্রযুক্তি ও ওষুধ রফতানিতে ভালো করার সুযোগ আছে। বিশ্ববাজারে বহুমুখী পাট পণ্যের চাহিদা রয়েছে।

বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, আয় ও কর্মসংস্থানের কথা চিন্তা করলে অর্থনীতি বহুমুখীকরণের পরিকল্পনা নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে রফতানি বহুমুখীকরণে উৎপাদন ও সেবা খাতে জোর দিতে হবে। এ জন্য সমন্বিত নীতি প্রণয়ন করতে হবে। বিশেষ করে গুরুত্ব দিতে হবে মুদ্রা বিনিময় হার ও কর নীতি প্রণয়নে। কর ও বাণিজ্য নীতি হওয়া উচিত বিনিয়োগসহায়ক। সহায়ক নীতি না হলে বহুমুখীকরণ হবে না। তিনি বলেন, টাকার দরপতন হলে পণ্যের দাম বাড়াবে। ক্রেতাদের ওপর চাপ বাড়বে। অন্যদিকে টাকার দর বাড়লে রফতানিকারকদের আয় কমে যাবে। তাদের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কমবে। এ দুটো দিক বিবেচনায় নিয়ে মুদ্রা বিনিময় হারের ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

বিশ্বব্যাংকের লিড ইকনোমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, বহুদিন ধরে দেশি শিল্পে উচ্চ সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে। তবে দেশীয় বাজার নির্ভর শিল্পের তেমন প্রবৃদ্ধি হয়নি। জনগণকে এর মূল্য দিতে হয়েছে। তিনি বলেন, দেশি শিল্পে সুরক্ষা দিলে তা নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য দিতে হবে। প্রতিবছর যে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয় তা বিনিয়োগের পরিবেশের জন্য সহায়ক নয়।

মূল উপস্থাপনায় ড. সাদিক আহমেদ বলেন, পোশাক রফতানিতে বহুমুখীকরণ হয়নি। রফতানি বহুমুখীকরণ না হলে পরিকল্পনা অনুযায়ী লক্ষ্য অর্জন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। তিনি বলেন, দেশীয় শিল্প সুরক্ষার সহায়তা দীর্ঘমেয়াদে থাকা উচিত নয়। তৈরি পোশাক খাতের মতো সব রফতানি খাতের জন্য বন্ডেড ওয়্যার হাউস সুবিধা দেওয়া প্রয়োজন। ব্যাক-টু-ব্যাক এলসি সুবিধার জন্য একটি আদর্শ নীতিমালা সবার জন্য থাকা প্রয়োজন।

বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সম্প্রতি রফতানি প্রবৃদ্ধি কমে গেছে। একদিকে পণ্য রফতানিতে দর কমে গেছে, অন্যদিকে গত চার বছরে টাকার দরপতন হয়েছে মাত্র ৪ শতাংশ। তিনি বলেন, রফতানিতে প্রতিযোগিতা সক্ষমতা

ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে নীতিগত সহায়তা দিতে হবে।

এমসিসিআইর সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, আগে এক ইউরো ১১০ টাকা ছিল। তা এখন ৮৭ টাকায় নেমে এসেছে। কিন্তু উৎপাদন ব্যয় কমেনি। এর সমাধান না করতে পারলে ব্যবসা অন্য দেশে চলে যাবে। তিনি বলেন, পোশাক খাতে যে অবস্থা আছে তা ধরে রেখে অন্য খাতের সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved