শিরোনাম
 প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে হাওর পরিদর্শনে যাচ্ছেন রোববার  ইন্টারনেটের দাম কমাতে কাজ করছে সরকার: তারানা  হাওর এলাকায় ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মচারীদের ছুটি বাতিল  সারোয়ার-তামিম গ্রুপের আইইডি বিশেষজ্ঞ জেনি গ্রেফতার: র‌্যাব
প্রকাশ : ২১ এপ্রিল ২০১৭, ১৮:৩২:১০ | আপডেট : ২২ এপ্রিল ২০১৭, ০৯:৪৬:৫৮

ঝিনাইদহে আস্তানায় জঙ্গি নেই, মিলেছে প্রচুর বিস্ফোরক

বিশেষ প্রতিনিধি
এবার ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পোড়াহাটি গ্রামে জঙ্গি আস্তানার খোঁজ পেয়েছে পুলিশ। তবে সেখানে কোনো জঙ্গিকে পাওয়া যায়নি। শুক্রবার দুপুরের পর থেকে আস্তানাটি ঘিরে রাখেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। আস্তানার ভেতরে প্রচুর বিস্ফোরক, গ্রেনেড ও সুইসাইডাল ভেস্ট, প্রেশার-কুকার বোমা, ৯ এমএম পিস্তল ও এঙ্প্লোসিভ ইমপ্রোভাইজড ডিভাইস (আইইডি) পাওয়া গেছে। জঙ্গি আস্তানা হিসেবে শনাক্ত আধাপাকা ওই বাড়ির মালিক আবদুল্লাহ ওরফে বেড়ে। তার সঙ্গে নব্য জেএমবির শীর্ষ নেতা মাইনুল ইসলাম মুসাসহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ নেতার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। সম্প্রতি সিলেট, মৌলভীবাজার, কুমিল্লা, সীতাকুণ্ডসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় একাধিক জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মেলে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) ডিসি মহিবুল ইসলাম খান সমকালকে বলেন, সন্ধান পাওয়ার পর পরই শুক্রবার দুপুরের পর থেকে আস্তানটি ঘিরে রাখা হয়েছে। সেখানে কোনো জঙ্গি না থাকলেও প্রেশার-কুকার বোমা ও বোমা তৈরির বিপুল সরঞ্জাম পাওয়া গেছে।

দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ঝিনাইদহের আস্তানায় ২০ কনটেইনার বোমা তৈরির রাসায়নিক দ্রব্য, তিনটি সুইসাইডাল ভেস্টসহ বিপুল পরিমাণ নানা ধরনের সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। গতকাল 'জঙ্গি আস্তানা' সন্দেহে পোড়াহাটি গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ি ঘিরে খোঁজ-খবর নেয় পুলিশ। পরে সদর থানা থেকে সাত কিলোমিটার পূর্বে পোড়াহাটি ইউনিয়নের একটি টিনশেড বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা ছিল বলে নিশ্চিত হয় সিটিটিসি। ওই বাড়িতে মোট দুটি কক্ষ রয়েছে। তবে ভেতরে কাউকে পাওয়া যায়নি। আবদুল্লাহ নামে এক ব্যক্তি তার স্ত্রীকে নিয়ে ওই বাড়িতে থাকত। অভিযানের আগেই তারা আস্তানা ছেড়েছে। আবদুল্লাহ নও মুসলিম। বছর তিনেক আগে সে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ধানহাড়িয়া গ্রামের আবদুল লতিফের মেয়েকে বিয়ে করে। আবদুল্লাহর বাড়িতে দেশের বিভিন্ন এলাকার জঙ্গিদের নিয়মিত যাতায়াত ছিল। তাদের মধ্যে ছিল মুসা ও হাদিসুর রহমান।

বাড়িটি ঘিরে সোয়াট, র‌্যাব, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা অবস্থান নেন। সাদা পোশাকেও পুরো এলাকায় অনেককে দেখা যায়। আশপাশের এলাকায় সংবাদকর্মী ও অন্য কোনো সাধারণ মানুষকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না।

সিটিটিসির এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, এর আগেও বিভিন্ন সময় ঝিনাইদহে জঙ্গিদের তৎপরতার খোঁজ পাওয়া যায়। হলি আর্টিসান হামলায় জড়িত নিবরাসসহ অন্যদের ঝিনাইদহে একটি আস্তানায় প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। এ ছাড়া নব্য জেএমবির অন্যতম শীর্ষ নেতা মুসাও নিয়মিত ওই এলাকায় যাতায়াত করত। গোয়েন্দাদের ধারণা, সিলেটের শিববাড়িতে অভিযানে মুসা মারা গেছে। তবে ডিএনএ প্রতিবেদন পাওয়ার আগে এ ব্যাপারে সন্দেহাতীত কোনো মন্তব্য করতে রাজি নন তারা।

আরও পড়ুন
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved