শিরোনাম
 বিচারকদের চাকরি বিধিমালার খসড়া প্রধান বিচারপতির কাছে  বাড়ল স্বর্ণের দাম  মামলা দিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের নাজেহাল করছে সরকার: ফখরুল  দোষারোপ করে জলাবদ্ধতার সমাধান হবে না: ওয়াসার এমডি
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ২১ এপ্রিল ২০১৭

কবিতার অর্থ

বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর
লেখক
মাহমুদ আল জামান
প্রকাশক
জার্নিম্যান বুক্স
মূল্য
২৮০ টাকা

কবিতার অর্থ :শব্দের উদ্ভাবন। কবিতার অর্থ :শব্দের আবিষ্কার। এই উদ্ভাবনের মধ্যে আমি কবিতা আবিষ্কার করি। আমি ভাবি, শব্দকে ভাবি। এই ভাবনাটাই কবিতা। ভাবতে ভাবতে আমি কবিতা লিখি। মাহমুদ আল জামান হয়তো আমার মতন ভাবেন। তার কবিতা, সে জন্য, আমার প্রিয়। শব্দকে ভালো না বাসলে কবিতা লেখা যায় না।
তার কবিতায় দেখা দেয় গ্রাম ও শহর :গ্রামাঞ্চল ও শহরাঞ্চল। এই দেখা দেওয়ার অর্থ :তিনি কবিতার মধ্যে সাহিত্য, সংস্কৃতি, সমাজ ও ইতিহাস প্রবিষ্ট করে দেন। এক ধরনের ক্ষমতা তার কবিতা থেকে উৎসারিত হতে থাকে। যেন তার কবিতায় বিকিরিত পপুলিজম ও মার্ক্সিস্ট পারসপেক্টিভস। এ দু'ধরনের চিন্তার তিনি প্রতিনিধিত্ব করেন। বাংলাদেশের কালচারাল স্টাডি প্রোগ্রাম বুঝতে হলে তার কবিতার কাছে যাওয়া দরকার।
বাংলার রোমান্টিসিজমের উৎস ধনতন্ত্রবিরোধী, উপনিবেশবিরোধী প্যাশান থেকে :ভাটিয়ালি কিংবা দরগাকেন্দ্রিক গীত কিংবা ভাওয়াইয়া কিংবা শহরের সরকারবিরোধী গান হচ্ছে তার কবিতার বিপ্লবী বিষয়। সে জন্য এক ধরনের আশাবাদ তার কবিতার ভাষা থেকে বেরিয়ে আসে। এভাবে তিনি শব্দের উদ্ভাবন করেন এবং শব্দের আবিষ্কার করেন। এই হচ্ছে তার কবিতার সবচেয়ে রোমান্টিক অংশ। মাহমুদ আল জামান, তার সবচেয়ে ভালো কবিতাগুলো লিখেছেন কলকাতায়, শান্তিনিকেতনে এবং ঢাকায়। এই কবিতাগুলোর মধ্যে দুঃখ ও যন্ত্রণা আছে। আছে রহস্যময় উল্লেখ এবং মেটাফোর, আছে তার জেনারেশনের অভিজ্ঞতা। তিনি বিভিন্ন ঐতিহ্য থেকে অভিজ্ঞতা ধার করেছেন, বিভিন্ন কমিউনিটির কাছে হাত পেতেছেন। তিনি বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ব্যবহার করেছেন ব্যক্তিক গভীর দুঃখকে বুঝবার জন্য। এই দুঃখবোধ তার ব্যক্তিক সত্তাকে গভীর থেকে গভীর করেছে, একই সঙ্গে পলিটিক্যাল ও পাবলিক করেছে। প্রাইভেট কবিতা ও পাবলিক কবিতা, শেষ পর্যন্ত লিরিক; বাস্তব জীবনের বিভিন্ন সংকট ও সংস্থান, শেষ পর্যন্ত সাহিত্য :এভাবেই তার কবিতার কাছে যাওয়া যায়।
মাহমুদ আল জামান লেখার মধ্যে ধরে রেখেছেন সাহিত্যের ধারণা, বিশেষ এক ভাষার বোধ, যে-বোধ থেকে তৈরি হয় বিশেষ এক ধরনের জ্ঞান। একই সঙ্গে বলেছেন, বৃহত্তর ন্যারেটিভের বাইরে কবিতা বোনা যায় না। বৃহত্তর ন্যারেটিভে আছে বিষাদগীতি, মাল্লাদের গান, চিৎকার, ক্ষুুধা, ভায়োলিনে বিচ্ছেদ সঙ্গীত। সে জন্য তার কবিতা বিপন্ন অপেক্ষা কিংবা মায়াবী সংলাপ। এসবের অর্থ হচ্ছে :বাংলা সাহিত্যের টেক্সট বাঙালি সমাজজীবনের বৃহত্তর ন্যারেটিভ। জামানের কবিতায় আছে এক ধরনের মেসিয়ানিক ভিশন, খুব সম্ভব বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক মুক্তির পথনির্দেশ। তার নানা কবিতায় উচ্চকিত এবং উচ্চারিত এক ধরনের পপুলিস্ট র‌্যাডিক্যালিজম, শব্দে শব্দে তিনি গেঁথেছেন তার অবস্থান। তার কবিতায় আছে পপুলিস্ট সীমানা। সেই সঙ্গে মিলিয়েছেন লড়াকু পটভূমি। লড়াকু পটভূমি তিনি ভেঙে চুরমার করেছেন পপুলিস্ট সীমানা বিভিন্নভাবে বাড়াবার জন্য। তিনি ব্যবহার করেছেন অরুণ মিত্রকে, ব্যবহার করেছেন সুভাষ মুখোপাধ্যায়কে, ব্যবহার করেছেন বিষ্ণু দে'কে এবং এমনকি রবীন্দ্রনাথকে। এই কৃতিত্ব অসামান্য।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved