শিরোনাম
 ঘূর্ণিঝড় 'মোরা': চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত  অস্ট্রিয়ার উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ  দিনাজপুরে অটোরিকশার সাথে সংঘর্ষের পর বাস খাদে, নিহত ৩  নতুন ভ্যাট আইনে সংকট তৈরি হবে
প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০১৭, ১৮:৩২:৪৫

রাবিতে ভাস্কর্য তছনছ: জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ

রাবি প্রতিনিধি
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) চারুকলা অনুষদের ভাস্কর্য তছনছ করার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছে মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগ।

বুধবার সকালে বিভাগের একাডেমিক কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ অভিযোগ দাখিল করেন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মোস্তফা শরীফ আনোয়ার।

তবে জড়িতদের বাঁচাতে অনুষদের কিছু শিক্ষার্থী বুধবার বৈঠক করেছে। তাদের নেতৃত্ব দিচ্ছে জড়িত শিক্ষার্থীরাই।

বিভাগের দেয়া অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়, ‘মঙ্গলবার মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের ভাস্কর্য উল্টানোর ঘটনায় আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। এ ঘটনা বিভাগের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটায়। বিভাগের একাডেমিক কমিটির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ করা হল।’

মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মোস্তফা শরীফ আনোয়ার বলেন, ‘আমরা এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার, প্রক্টর এবং অনুষদের ডিনের কাছে চিঠি দিয়েছি। যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে। প্রশাসনের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

তবে অভিযোগে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি বলেও জানান তিনি।

চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বিভাগের লিখিত অভিযোগপত্র পেয়েছি। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে অনুষদ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’

এদিকে বুধবার সকালে যখন বিভাগের একাডেমিক কমিটির বৈঠক চলছিল তখন অনুষদ চত্বরের মুক্তমঞ্চে বৈঠক করেন অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের প্রায় ৫০ জন শিক্ষার্থী। তারা এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বাঁচানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, মঙ্গলবার ঘটনায় জড়িত থাকার বিষয়ে স্বীকারোক্তি দেয়া ইমরান হোসেন অনিকসহ মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের কয়েকজন এ বৈঠকে নেতৃত্ব দেন।

এসময় তারা শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, 'একটি ভুল হয়েছে, কিন্তু এই ভুলের কারণে যেন কেউ সমস্যায় না পড়ে সেজন্য আমরা সবাই এক থাকবো।'

এ ঘটনার সাথে সাত জন জড়িত বলে মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মোস্তফা শরীফ আনোয়ার মঙ্গলবার জানালেও বুধবার ইমরান হোসেন অনিক শিক্ষার্থীদের নিয়ে বৈঠকের সময় বলেন, এ ঘটনায় ৫ জন জড়িত।

তবে ঘটনায় সরাসরি জড়িত থেকে নেতৃত্ব দেয়া ইউসুফ আলী স্বাধীন বলেন, ‘ওই ঘটনায় বিভাগের প্রায় ৩০-৩৫ জন শিক্ষার্থী জড়িত ছিল। শুনেছি স্যাররা লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। আমরা দাবি আদায়ের জন্য এমন প্রতিবাদ করেছিলাম। রাতের আধাঁরে করাটা ভুল হয়েছে মানছি। এখন এ ঘটনার জন্য তারা যদি কোনো ব্যবস্থা নেন, তাহলে আমাদের কিছু বলার নেই। তারা আমাদের অভিভাবক। তারা যা ভালো মনে করবেন সেটাই করবেন।’

নাট্য ব্যক্তিত্ব ও অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক বলেন, ‘বিভাগের দেয়া অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ ঘটনার একটি নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া দরকার। যারা জড়িত তাদের ব্যাপারেও ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ। আমি তো বলবো থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করা দরকার। কেন না শিল্পের অবমাননা করে শিল্প প্রতিষ্ঠা করার এমন কাজ কখনই প্রতিবাদের ভাষা হতে পারে না। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য নেই, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় একটি পক্ষ এখান থেকে ফায়দা তুলতেই পারে।’

এদিকে বুধবার অনুষদের কিছু শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন, 'এ ঘটনায় বিএনপি-জামায়াত বা মৌলবাদী কোনো সংগঠনের দু’একজন জড়িত আছে; তাই তাদের বাঁচাতে নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না।'

মৌলবাদী গোষ্ঠীর বিষয়ে অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক বলেন, ‘তারা তো নানা জায়গা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এমনকি অনেক প্রগতিশীল সংগঠনের মধ্যেও তারা ঘাপটি মেরে রয়েছে। তাই এই ঘটনাটি ছোট করে দেখার কোনো অবকাশ নেই।’

উল্লেখ্য, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায় অবস্থিত পাঁচ শতাধিক ভাস্কর্য তছনছ করে মৃৎশিল্প ও ভাষ্কর্য  বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী। অনুষদের বিভিন্ন সমস্যার প্রতিবাদের এমনটি করা হয় বলে মঙ্গলবার সকালে সাড়ে ১১টার দিকে ভাস্কর্য বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ইউসুফ আলী স্বাধীন ও ইমরান হোসাইন অনিক শিক্ষক ও সাংবাদিকদের সামনে স্বীকারোক্তি দেন।

আরও পড়ুন
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved