শিরোনাম
 এক মাস কঠোর সংযমের পর এলো খুশির ঈদ  ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত  ঈদের জামাতে দেশের কল্যাণ কামনা
প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০১৭, ১১:৩৯:২৫ | আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০১৭, ১২:১১:৫৯

চট্টগ্রামে সংঘর্ষ: ২ মামলায় আসামি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদক

চট্টগ্রাম ব্যুরো
চট্টগ্রাম আউটার স্টেডিয়ামে সুইমিংপুল নির্মাণকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগের এক গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে।

সুইমিংপুল প্রকল্প এলাকায় ভাংচুরের ঘটনায় ব্যবস্থাপক শফিবুল ইসলাম স্বপন ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় এসআই মহিউদ্দিন রতন বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় মামলা দুটি দায়ের করেন। মঙ্গলবার রাতে দুটি মামলা দায়ের হয় বলে জানান নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মো. আব্দুর রউফ।

তিনি জানান,  দুই মামলায় ৫৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরও সাড়ে ৪০০ থেকে ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনিকে দুই মামলাতেই আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে।

নগরীর কাজীর দেউড়ী এলাকায় চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়াম-সংলগ্ন আউটার স্টেডিয়ামের এক পাশে সুইমিংপুল নির্মাণ করছে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা (সিজেকেএস)। এই সুইমিংপুল নির্মাণ বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে নগর ছাত্রলীগ। সুইমিংপুলের কাজ বন্ধ করা না হলে নিজেরাই তা গুঁড়িয়ে দেবেন বলে হুমকি দেন নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি। এ নিয়ে আলটিমেটামও দেয় ছাত্রলীগ। এর পরও কাজ বন্ধ না হওয়ায় মঙ্গলবার বিকেলে ছাত্রলীগ নেতা রনির নেতৃত্বে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী মানববন্ধন করেন একপর্যায়ে সুইমিংপুলের নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিতে আউটার স্টেডিয়ামের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেন তারা।

এদিকে অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় নির্মাণাধীন সুইমিং পুলের চারপাশ আগে থেকে পুলিশ ঘেরাও করে রাখে। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ভেতরে ঢুকতে চাইলে তাদের বাধা দেয় পুলিশ। ক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা এ সময় স্টেডিয়াম-সংলগ্ন সড়কে অবস্থান নেন এবং যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন। ফের তারা সংগঠিত হয়ে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে নির্মাণাধীন সুইমিংপুলের ভেতরে ঢুকে ভাংচুর শুরু করেন। এ সময় তাদের হাতে ছিল লাঠি। সুইমিংপুলের চারপাশের বেড়া ও নির্মাণসামগ্রী ভাংচুর করতে থাকলে পুলিশ তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ শুরু করলে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ ফাঁকা গুলি ও লাঠিচার্জে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ইটপাটকেল ছোড়ে। এভাবে দফায় দফায় চলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ। সংঘর্ষে নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম ও কোতোয়ালি থানার ওসি জসিম উদ্দিন এবং ফাঁড়ির ইনচার্জসহ কয়েক পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদের মধ্যে একজন কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ হন। ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মীসহ দুই পক্ষের ২০ জন আহত হন।

আরও পড়ুন
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved