শিরোনাম
 উত্তরে পানি কমছে, বাড়ছে মধ্যাঞ্চলে  রাষ্ট্রপতিকে জানানো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব: ওবায়দুল কাদের  নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারী খুঁজতে কমিশন গঠনের চিন্তা চলছে: আইনমন্ত্রী  রায় নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ নজিরবিহীন: ফখরুল
প্রকাশ : ২০ মার্চ ২০১৭, ১৭:১৯:৪৪ | আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৭, ২১:৫৪:৩৪

চট্টগ্রামে দুই বাড়িতে অভিযানে কিছু মেলেনি

চট্টগ্রাম ব্যুরো
জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে চট্টগ্রাম নগরের দুইটি ভবনে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। সোমবার বিকাল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আকবরশাহ থানার কর্নেলহাট এলাকায় দুইটি বাড়িতে এ অভিযান চালানো হয়। দুই ঘণ্টার অভিযানে কোন জঙ্গিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। উদ্ধার হয়নি জঙ্গি কাজে ব্যবহৃত কোন ধরনের সরঞ্জামও। জঙ্গি থাকার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এক যোগে এ অভিযান পরিচালিত হয়েছিল।

তবে অভিযান শেষে পুলিশ বলেছে, ব্লক রেইডের অংশ হিসেবেই এ অভিযান পরিচালনা করেছে তারা। অভিযানে স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাকটিকস (সোয়াত), বোমা নিস্ক্রিয় দল ও নগর পুলিশের শতাধিক সদস্য অংশ নেন। র‌্যাবের একটি টিমও ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার সমকালকে বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য ছিল না। তবে দুইটি বাড়িতে জঙ্গি থাকতে পারে এ ধরণের সন্দেহ ছিল। তাই এ অভিযান চালানো হয়েছে।’ এটি নিয়মিত জঙ্গি বিরোধী অভিযানের অংশ বলে দাবি করেছেন তিনি।

তবে পুলিশের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সমকালকে জানান, সীতাকুণ্ডের সাধন কুটির থেকে অক্ষত গ্রেফতার দুই জঙ্গিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে নারী জঙ্গি রাজিয়া সুলতানা ওরফে আরজিনা পুলিশকে জানায়, আকবর শাহ থানা এলাকার দুইটি বাড়িতে তাদের কিছু সঙ্গী রয়েছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার দুপুর থেকে অভিযানের প্রস্তুতি নেয় পুলিশ। বিকালে বাড়ি দুটিতে অভিযান চালানো হয়েছে। তবে জঙ্গিরা পুলিশকে বিভ্রান্ত করেছে নাকি অভিযানের আগে পালিয়ে গেছে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

নগরের আকবরশাহ থানার কর্নেলহাট ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পূর্বপাশে সিডিএ আবাসিক এলাকা। এ আবাসিকের এক নম্বর সড়কের ৪০ ও ৪১ নম্বর বাড়িটি প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেলের হকের। ভবনের নাম দিয়েছেন তিনি ‘মমহ নিবাস’। সোমবার বিকাল চারটার দিকে এই চারতলা ভবনটি ঘিরে ফেলে পুলিশ সদস্যরা। প্রায় একই সময় তিন কিলোমিটার দূরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পশ্চিম পাশে ঈশান মহাজন সড়কের শ্রী শ্রী রক্ষা কালী বাড়ির পাশের একটি ভবনও ঘিরে ফেলে পুলিশ। এ ভবনটির সামনে উপস্থিত হয় সোয়াতের সদস্যরা। ভবনটির মালিক কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কোম্পানি লিমিটেডের সাবেক মহাব্যবস্থাপক শ্রীশ সাহা। অবসর নেয়ার পর চার বছর আগে এ বাড়িটি নির্মাণ করেছিলেন তিনি। সন্দেহভাজন দুইটি ভবনেই প্রবেশ করে পুলিশ। ভবনের প্রতিটি ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালানো হয়। নেওয়া হয় সব ভাড়াটিয়ার নাম-ঠিকানা মোবাইল নম্বর। নেওয়া হয় কর্মক্ষেত্রের তথ্যও। সন্ধ্যা ৬টার দিকে দুইটি ভবন থেকে অভিযান শেষ করে বেরিয়ে আসেন পুলিশ সদস্যরা।

এ প্রসঙ্গে ঈষান মহাজন সড়ক এলাকার যে ভবনে অভিযান চালানো হয় ভবনটির মালিক শ্রীশ সাহা সমকালকে বলেন, ‘আমার ভবনের প্রতিটি ফ্লোরে দুইটি করে ফ্ল্যাট রয়েছে। এখানে যারা থাকেন সবাই আমার পরিচিত এবং হিন্দু। এখানে কেউ নেই। পুলিশ কোন তথ্যের ভিত্তিতে তল্লাশি চালিয়েছে জানি না।’

দুইটি ভবনে তল্লাশি শেষ করে বের হওয়ার পর নগর পুলিশের উপ কমিশনার(পশ্চিম) ফারুকুল হক বলেন, ‘কয়েকটি বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। তবে কিছু পাওয়া যায়নি। জঙ্গি বিরোধী নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে এ তল্লাশি চালানো হয়েছে।’

মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved