শিরোনাম
 আদিলুরকে ফেরত পাঠাল মালয়েশিয়া   ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন  ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ  আইনজীবী তালিকাভুক্তি পরীক্ষা শুক্রবার
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ২৯ অক্টোবর ২০১৬, ০০:৫৮:০২

আজ আ'লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি মন্ত্রিসভায়ও রদবদলের ইঙ্গিত

নেতাদের প্রতি শেখ হাসিনা জনগণের সমস্যার কথা সরকারের কাছে তুলে ধরুন
সমকাল প্রতিবেদক
জনগণের সমস্যার কথা সরকারের কাছে তুলে ধরার জন্য দলের নেতাদের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ শুধু একটি রাজনৈতিক দল নয়, একটি প্রতিষ্ঠান। দলের দায়িত্ব হচ্ছে জনগণের সুবিধা-অসুবিধার কথা সরকারের কাছে পেঁৗছে দেওয়া। সরকারকে মানুষের সমস্যার কথা জানানো। আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্যও নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কেবল উন্নয়ন করলেই নির্বাচনে বিজয়ী হওয়া যায় না। তাই জনগণের কাছে গিয়ে তাদের কথা শুনতে হবে।

গতকাল শুক্রবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সভাপতিমণ্ডলীর প্রথম বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। গতকালের এই বৈঠকে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদ পূর্ণাঙ্গ করা হয়েছে। তবে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভাপতিমণ্ডলীর

তিনটি, সম্পাদকমণ্ডলীর দুটি এবং উপদেষ্টা পরিষদের চারটি সদস্য পদ শূন্য রাখা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরের মধ্যে এই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার কথা রয়েছে। বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানানোর পাশাপাশি মন্ত্রিসভায় শিগগিরই রদবদলের ইঙ্গিতও দিয়েছেন দলের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। এখন আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন করতে হবে। এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করে চলেছি। বিশ্ব দরবারে এ দেশের মানুষ যেন আবারও মাথা উঁচু করে চলতে পারে, বাংলাদেশ শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়, সেটিই আমাদের লক্ষ্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর দেশে হত্যা-ক্যু ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়। জিয়াউর রহমান ও পরে বিএনপি-জামায়াতের একটাই উদ্দেশ্য ছিল, বাংলাদেশের স্বাধীনতা নস্যাৎ করে এ দেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করা। আওয়ামী লীগ লড়াই-সংগ্রাম করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেছে।

গত ২২-২৩ অক্টোবর দলের ২০তম জাতীয় সম্মেলনের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, এটি অত্যন্ত সফল সম্মেলন হয়েছে। এতে দেশি-বিদেশি অতিথিরা এসেছেন। তারা প্রত্যেকে আমাদের উন্নয়ন ও আর্থ-সামাজিক অবস্থার প্রশংসা করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্যের পর তার সভাপতিত্বে সভাপতিমণ্ডলীর বৈঠক শুরু হয়। দীর্ঘ সোয়া তিন ঘণ্টা ধরে চলা এই বৈঠকে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মতিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্যাহ, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, ওবায়দুল কাদের, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ড. আবদুর রাজ্জাক, ফারুক খান, অ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান খান, রমেশ চন্দ্র সেন ও পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য্য উপস্থিত ছিলেন। তবে দলের সদ্য বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক ও নবনির্বাচিত সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম পারিবারিক কাজে লন্ডনে যাওয়ায় বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি।

আওয়ামী লীগ সভাপতির অভিনন্দন :প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা দলের ২০তম জাতীয় সম্মেলন ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সফলভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন এবং কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

গতকাল দলের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্মেলন সফলভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ার ব্যাপারে সহযোগিতা করায় দলের সভাপতি শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সব সাংগঠনিক জেলা থেকে আসা কাউন্সিলর, ডেলিগেট, অতিথিবৃন্দসহ সংগঠনটির লাখ লাখ নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ী এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, দেশের সব শ্রেণি-পেশার নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভাপতিম লীর ১৯ সদস্যের মধ্যে তিনজন, ৩৪ সদস্যের সম্পাদকমণ্ডলীর মধ্যে দু'জন এবং ৪২ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদের মধ্যে চারজন ছাড়া পূর্ণাঙ্গ কমিটি চূড়ান্ত হয়েছে। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার চূড়ান্ত অনুমোদনের পর শনিবার দুপুরের মধ্যে তা ঘোষণা করা হবে।

নতুন কমিটিতে কারা আসছেন_ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বেশ কিছু নতুন মুখ আসছে। সম্পাদকমণ্ডলী ও কার্যনির্বাহী সদস্যপদে তৃণমূল থেকেও অনেকে এসেছেন। নতুন যারা এসেছেন তারা দক্ষ, যোগ্য ও মেধাবী হওয়ার কারণেই কমিটিতে জায়গা করে নিয়েছেন। এই কমিটি ঘোষণার মাধ্যমে জাতীয় সম্মেলনের সাতদিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার প্রতিশ্রুতি পূরণ হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহসম্পাদক পদে মনোনয়ন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, সহসম্পাদক পদে মনোনীতদের নাম একটু সময় নিয়ে ঘোষণা করা হবে। তবে সহসম্পাদকের সংখ্যা কোনোভাবেই একশ'র বেশি হবে না।

গত ২২-২৩ অক্টোবর দলের ২০তম জাতীয় সম্মেলনের শেষ দিনের কাউন্সিল অধিবেশনে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যের নাম ঘোষণাকালেও ১৯টি পদের মধ্যে তিনটি ফাঁকা রাখা হয়েছে। এগুলো কবে নাগাদ পূরণ করা হবে_ এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'মন্ত্রিসভায় রদবদল হতে পারে। এ কারণেই ওই তিনটি পদ ফাঁকা রাখা হয়েছে।' এ সময় সাংবাদিকরা জানতে চান, কবে রদবদল আনা হবে? জবাবে মন্ত্রী বলেন, 'এটি প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। এ বিষয়ে আমার কিছু বলা ঠিক হবে না।'

ওবায়দুল কাদের জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ নেতারা আগামী ৬ নভেম্বর টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনকের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে যাবেন। আর ৮ নভেম্বর বিকেল ৪টায় গণভবনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

কমিটিতে নতুন যারা এলেন

বৈঠকে অংশ নেওয়া কয়েকজন নেতা জানিয়েছেন, ফরিদুন্নাহার লাইলীকে দলের কৃষি সম্পাদক করা হয়েছে। বিদায়ী কমিটিতে তিনি ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ছিলেন। নতুন কার্যনির্বাহী সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন_ এস এম কামাল হোসেন, ইকবাল হোসেন অপু, আনোয়ার হোসেন, গোলাম রব্বানী চিনু, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ূয়া ও মারুফা আখতার পপি।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved