শিরোনাম
 আদিলুরকে ফেরত পাঠাল মালয়েশিয়া   ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন  ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ  আইনজীবী তালিকাভুক্তি পরীক্ষা শুক্রবার
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ০৩ এপ্রিল ২০১৬, ০১:২২:৩২

রাজধানীর রাস্তায় ময়লা পানির ঢেউ

জয়দেব দাশ
বর্ষা এসে পেঁৗছায়নি এখনও। অথচ রাজধানীর রাস্তাঘাটে জলাবদ্ধতা শুরু হয়ে গেছে এখনই। তবে বৃষ্টিতে নয়; বাসাবাড়ি, হোটেল-রেস্তোরাঁর বর্জ্যমিশ্রিত স্যুয়ারেজের দুর্গন্ধ পানির জন্য জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। রাজধানীর পাড়া-মহল্লার অলিগলি থেকে শুরু করে ভিআইপি সড়কেও দেখা যাচ্ছে ময়লা পানির ঢেউ। এ নিয়ে নাগরিক ভোগান্তি এখন চরমে। তবু এ নিয়ে ঢাকা ওয়াসার নেই কোনো মাথাব্যথা। ময়লা পানির জলাবদ্ধতাকে স্বাভাবিক বলে বিবেচনা করছে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ। এ প্রসঙ্গে কথা বলতেও রাজি নন সরকারি এ সংস্থাটির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।

রাজধানীর ফার্মগেটের রাজাবাজার এলাকার রাস্তায় বেশ কিছুদিন ধরেই স্যুয়ারেজ ড্রেনের ময়লা পানি ঢেউ খেলছে। স্থানীয় বাসিন্দা আল ইমরান জানান, জুমার নামাজে যেতে পারেননি। কারণ মসজিদের সামনের রাস্তায় জমে ছিল ড্রেনের ময়লা পানি। শুক্রবার সকাল থেকেই এলাকার হাজার হাজার বাসিন্দা ময়লা পানির মধ্য দিয়েই যাতায়াত করতে বাধ্য হয়েছেন। স্থানীয় কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতারা বলেন, হঠাৎ করে ড্রেন থেকে ময়লা পানি উপচে ওঠায় সকাল থেকে ক্রেতারা বাজারে আসতে পারেননি। ফলে ব্যবসায়ীদের অনেক ক্ষতি হয়েছে।

নিউ ইস্কাটন এলাকার বাসিন্দা মহিউদ্দিন আহম্মেদ জানান, দিলু রোডের একটি অংশ প্রায়ই ময়লা পানিতে ডুবে থাকে। কয়েকদিন পরপর ড্রেন উপচে ওঠে ময়লা পানি। দিলু রোড থেকে সহজে বের হয়ে মগবাজার বা হাতিরঝিলের সড়ক ব্যবহারের সুযোগ থাকলেও ময়লা পানির কারণে তা হচ্ছে না। শিশুদের নিয়ে হেঁটেই ইস্কাটনের মূল সড়ক ঘুরে মগবাজার এলাকায় যেতে হয়।

গতকাল শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে দিলু রোডে দেখা হলো দিলারা হোসেন টুসি ও তার মা ফেরদৌসির সঙ্গে। তারা রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভাবছিলেন কীভাবে এই নোংরা পানি পার হওয়া যায়। শেষ পর্যন্ত পাঁচ টাকা দিয়ে রিকশায় চেপে ময়লা পানির পথটুকু পাড়ি দেন মা-মেয়ে।

রাজধানীর কাকলী-বনানী এলাকার ভিআইপি সড়কেও স্যুয়ারেজের নোংরা ময়লা পানি ঢেউ তুলছে দীর্ঘদিন ধরে। ওই এলাকা দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুর রহমান জানান, শীত মৌসুম জুড়ে এই এলাকার রাস্তায় এমন নোংরা পানি জমে থাকে। মনে হয়, ঢাকা শহরে এগুলো দেখার কেউ নেই। রাস্তার দুই পাশেই অভিন্ন চিত্র।

এছাড়া রাজধানীর শান্তিনগর এলাকায় বিভিন্ন অলিগলিও নিত্যদিনই ডুবে থাকে ড্রেনের ময়লা পানিতে। স্থানীয় বাসিন্দা জিয়া হাসান সিকান্দারের অভিযোগ, ঢাকা ওয়াসার স্থানীয় অফিসে বারবার এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অভিযোগ করেও প্রতিকার মিলছে না।

ঢাকা ওয়াসার স্টর্ম ড্রেনেজ শাখার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশরী নূরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো কথা না বলে ফোনের সংযোগ কেটে দেন। এরপর কয়েক দফা চেষ্টা করেও তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা ওয়াসার এক কর্মচারী জানান, কর্মকর্তারা নতুন প্রকল্পের বিষয়ে বেশি উৎসাহী। ঢাকা ওয়াসায় প্রতি বছর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ থাকে। এর অধিকাংশই ঠিকাদারের সঙ্গে প্রকৌশলীদের ভাগবাটোয়ারায় ফুরিয়ে যায়। ফলে এমন ঘটনাগুলো নিয়মিতই ঘটেছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে নালিশ করলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে অভিযোগকারীকেই হয়রানি করা হয় বলেও দাবি করেন ওই কর্মচারী।
মন্তব্য
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved